ডিউটি থাকা সত্বেও ছিলেন না সিভিল ডিফেন্সের আধিকারিক, হাজার মানুষের মোকাবিলায় মাত্র ৮ জন কর্মী, প্রশ্ন উঠেছে গাফিলতি নিয়ে

বিবিপি নিউজ: জলপাইগুড়ির মাল নদীতে
হড়পা বান আসার সময় নদীর ঘাটে ছিলেন সিভিল ডিফেন্সের মাত্র আটজন কর্মী। আর নদীর ঘাটে ছিলেন প্রায় হাজার খানেক মানুষ। আর প্রকাশ্যে এসেছে প্রশাসনের গাফিলতি। খোদ সিভিল ডিফেন্সের কর্মীরাই জানিয়েছেন , তাদের হাতে দড়ি ছাড়া বিপর্যয় মোকাবিলার কোনও সরঞ্জামই ছিল না।

কর্মীদের বক্তব্য, তাঁদের কাছে উদ্ধারকার্যের জন্য প্রাথমিক পর্যায়ে ছিল কেবল দড়ি। কোনও সার্চ লাইটও ছিল না। তা ছিল নিকটবর্তী অফিসে। সেখান থেকে সার্চ লাইট যতক্ষণে আনা হয়, ততক্ষণে ব্যাহত হয় উদ্ধারকার্য। এই বিষয়টি অবশ্য স্বীকার করে নিয়েছেন ওই ঘাটের কর্তব্যরত এনডিআরএফ কর্তাও। তাঁর নিরুত্তাপ ব্যাখ্যা, “উদ্ধারকাজ সময়েই শুরু হয়েছে। আমাদের কাছেই অফিস। সেখান থেকে সার্চ লাইট নিয়ে আসা হয়েছে।” দুর্ঘটনার সময়ে তিনি যে ঘাটে ছিলেন না, সেটাও অবশ্য নিজ মুখে স্বীকার করেছেন।

হড়পা বানের দুর্ঘটনায় প্রথম থেকেই প্রশাসনের বিরুদ্ধে একাধিক গাফিলতির অভিযোগ উঠে আসছিল। স্থানীয় বাসিন্দাদেরও অফিযোগ, কার্যত নিষ্ক্রিয় ছিল প্রশাসন। এমনই এক প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় এক চা বাগানের ম্যানেজার। তাঁর দাবি, ভেসে যাওয়া লোকজনকে উদ্ধার করতে যান স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁর চা বাগানের শ্রমিকরাও উদ্ধারকার্যে হাত লাগান। প্রাথমিকভাবে প্রথমে তিনি প্রশাসনের কাউকেই দেখতে পাননি। পুলিশ, প্রশাসনের কাউকেই উদ্ধার কাজে নামতে দেখা যায়নি।