সন্তান দলের দুদিন ব্যাপী ধর্মীয় সমাবেশ উদযাপিত হলো অশোক নগরে।

বিবিপি নিউজ,প্রদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়: হত্যা নয় ভালোবাসা, হিংসা নয় প্রেম, প্রকৃতির তত্ত্বের শিক্ষা নাও, যতদিন পৃথিবীতে আলাদা আলাদা দল সম্প্রদায় থাকবে ততদিন পৃথিবীতে শান্তি – সাম্য আসতে পারে না।

প্রকৃত ধর্মের একটাই নীতি সেটা হল প্রকৃতির নীতি। সেই নীতি সর্বজনের, সর্ব দেশের,সর্বকালের নীতি। প্রকৃতিই সাম্যবাদের প্রকৃত শিক্ষক, বিশ্ববোধ না জাগলে রাজনীতি করার অধিকার জন্মায় না। এই রূপ সাম্যবাদের কথা প্রচারের লক্ষ্যে দুদিন ব্যাপী উদযাপিত হলো ধর্মীয় সমাবেশ।

সন্তান দলের প্রতিষ্ঠাতা শ্রী শ্রী বালক ব্রহ্মচারী মহারাজের শুভ ১০৩ তম আবির্ভাব দিবস উপলক্ষে ৯ এবং ১০ই নভেম্বর বুধ এবং বৃহস্পতিবার উত্তর ২৪ পরগনার অশোকনগরের কচুয়া মোড় মিলন সংঘ ময়দানে উদযাপিত হল দুইদিনব্যাপী ধর্মীয় সমাবেশ। সন্তান দলের কর্মীদের কথায় তাদের গুরুদেবের জন্মদিনটি কর্মী দিবস হিসেবে পালন করা হয়।

এই সমগ্র অনুষ্ঠানটি পরিচালনা এবং ব্যবস্থাপনায় ছিলো সন্তানদলের হাবরা জেলা কমিটি। সহযোগিতায় ছিলো সন্তান দল কেন্দ্রীয় কমিটির উত্তর ২৪ পরগনা সমন্বয় কমিটি ও মৈত্রী মহল মহিলা কর্মী এবং বিভিন্ন শাখা ও জেলা কমিটি।

রাজ্যের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত হাজার হাজার ভক্তবৃন্দের সমাগমে মহা সাড়ম্বরের সাথে উদযাপিত হলো গুরুদেবের ১০৩ তম আবির্ভাব দিবস। বিভিন্ন জেলা থেকে আগত ভক্তবৃন্দের জন্য থাকা-খাওয়া এবং যাতায়াতের সু বন্দোবস্তও করা হয়েছিল উৎসব কমিটির পক্ষ থেকে। ভক্তবৃন্দের আমন্ত্রণে উপস্থিত হয়েছিলেন অশোকনগর কল্যাণগড় পৌরসভার পৌরপ্রধান মাননীয় প্রবোধ সরকার মহাশয় উপ পৌর প্রধান ধিমান রায় মহাশয় এবং পৌর পরিষদ সদস্য সমীর দত্ত মহাশয়।

গুরুদেবের জন্মদিবস উদযাপনে কর্মীবৃন্দের উৎসাহ আর উদ্দীপনা ছিল চোখে পড়ার মতো। ৯ এবং ১০ ই নভেম্বর বুধ এবং বৃহস্পতিবার দুই দিনের মহতি বৈদিক ধর্মীয় অনুষ্ঠানে মহানাম সংকীর্তন, বেদতত্ত্ব আলোচনা, বৈদিক সংগীত, নৃত্যনাট্য অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ১০ই নভেম্বর বৃহস্পতিবার সকালে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা অশোকনগরের বিভিন্ন পথ পথ পরিক্রমা করে।

বৃহস্পতিবার রাত ১০ টা ২০ মিনিটে ১০৩ টি মোমবাতি জ্বালিয়ে এবং কেক কেটে গুরুদেবের মহা আবির্ভাব মুহূর্ত উদযাপিত করা হয় তার সাথে চলে নাম সংকীর্তন আর ভক্তবৃন্দের আনন্দে আত্মহারা হয়ে নিত্য। হাজার হাজার ভক্তবৃন্দের এই বাঁধভাঙ্গা উচ্ছ্বাস ছিল চোখে পড়ার মতো। সন্তান দলের একজন বিশিষ্ট কর্মী সত্য চক্রবর্তী মহাশয় জানালেন প্রতিবছর তাদের পরমারাধ্য গুরুদেবের জন্ম দিবস মহা সমারোহের সাথে উদযাপন করে থাকেন এবং আগামী দিনেও এই পরম্পরা বজায় রাখার অভিপ্রায় আছে বলেও জানালেন।